Top Stories
  1. শর্ট শার্কিটের ফলে আগুন লাগলো একটি খড় বোঝাই লরিতে
  2. ব্রিগেডের সাফল্য কামনা করে রাহুলের শুভেচ্ছা মমতাকে
  3. শিলিগুড়িতে উদ্ধার বিপুল পরিমানের মদ
  4. ক্যানিং স্টেশন থেকে ধরা পড়লো ভুয়ো টিকিট কালেক্টর
  5. অস্ট্রেলিয়াকে ৭উইকেটে হারিয়ে সিরিজ জিতল ভারত
  6. সুন্দরবনে জলপথে অভিযান চালিয়ে আটক ২ টি বাংলাদেশের ট্রলার,উদ্ধার কয়েকশো কোটি টাকার পোশাক
  7. তৃনমূল আত্মবিশ্বাস হারিয়ে জনবিরোধী কাজ করছে, তৃনমূল গায়ের জোরে বাঁশ লাগিয়ে মানুষ কে বিগ্রেডে নিয়ে যেতে চাইছে, বিগ্রেডে কোন কাজের লোক আসছে না
  8. মাদক সহ আটক কুখ্যাত দুস্কৃতি
  9. বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাস এর অভিযোগ উঠল এক যুবকের বিরুদ্ধে
  10. রেললাইনের ধার থেকে উদ্ধার এক মৃত সদ‍্যজাত কন‍্যাসন্তান
news-details
Story

কথায় কথায় শেয়ার উইথ কেয়ার 

 

ঘুম থেকে উঠে হোয়াটসঅ্যাপ চেক করা আজকাল সবারই অতি আবশ্যিক রুটিনের মধ্যে পড়ে। একান্ত ব্যাক্তিগত সম্পর্ক, বন্ধু গ্রুপ, অফিস গ্রুপ, পারিবারিক গ্রুপ, জনসংযোগ---সব মিলিয়ে কর্তব্য রক্ষার তাগিদে পুরো দিন চলে যায় । 

গুড মর্নিং থেকে গুড নাইট, জন্মদিন, বিবাহ বার্ষিকী, দুনিয়ার উৎসব--- শুভেচ্ছার প্রত্যুত্তর দিতে দিতে রান্না পুড়ে যায়, নাওয়া খাওয়া মাথায় ওঠে, অফিসের কাজে ভুল হয়, পথেঘাটে দুর্ঘটনা পর্যন্ত ঘটে। তা হোক সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং-এর যুগ বলে কথা ! জালের বাইরে যাওয়া চলবে না কিছুতেই। 

এখানেই শেষ নয়, শুধু 'হাই হ্যালো' বা ব্যক্তিগত যোগাযোগ হলে কথা ছিল। তথ্য শেয়ার করার প্রবণতাও এখন আকাশচুম্বী। আট থেকে আশি, আমরা সবাই দিনরাত এই কাজটাই করছি। কাজ না বলে কান্ড বলাই ভালো। 

সিনেমা, টিভি ও ক্রিকেট তারকাদের গসিপ থেকে সন্তোষী মা , লোকনাথ বাবা, দুর্গা বা শিবমহিমা থেকে হনুমান চালিশা কিছুই বাকি নেই। এখানে আর একটি বিশেষ দায়িত্ব থাকে। সেটা হলো আরও বহু মানুষের কাছে তাকে পৌঁছে দিতে হবে। মানে যিনি পাঠান, তিনিই এই কাজটাও যোগ করেন সঙ্গে।

রাজনৈতিক প্রচার থেকে ধর্মের প্রসার---কালেকশন ও শেয়ারিং চলছে জেট গতিতে। ফেসবুক , হোয়াটসআপ, টুইটার -- সর্বত্র এই শেয়ারিংয়ের পাগলামি মহামারীর আকার ধারণ করেছে। বেশ কিছু সমাজবিরোধী কাজকর্মও ঘটছে এই প্রবণতাকে হাতিয়ার করে। কোনটা জনস্বার্থে আর কোনটা জনবিরোধী, তা বোঝার আগেই যা ঘটার ঘটে যাচ্ছে। সচেতন এখনই না হলে, ভবিষ্যতে বড় ধরনের সামাজিক বিপদ যে ঘটবে, তাতে কোনও সন্দেহ নেই। ইদানীং টিভি খুললেই একটা 'জনস্বার্থে প্রচারিত' বিজ্ঞাপন দেখতে পাচ্ছি হোয়াটসঅ্যাপের পক্ষ থেকে যে 'গুজব ছড়াবেন না'। এটা শুভ প্রচেষ্টা। কতটা সাড়া মেলে , সেটাই দেখার। 

এ প্রসঙ্গে বলি, আমি নিজে আজ একটা মেসেজ পেলাম মেসেঞ্জারে। পাঠিয়েছেন আমার প্রাক্তন সহকর্মী। তিনি অত্যন্ত বিচক্ষণ একজন মানুষ। অর্থাৎ তাঁর পাঠানো যে কোনও বিষয়কে আমি বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে থাকি এবং অনুরোধমতো শেয়ার করি। আজ তিনি যেটা পাঠিয়েছেন, সেটা একটা যুগান্তকারী খবর। কি, না, পুনের একটি সংস্থা জানাচ্ছে, তাদের কাছে বিনামূল্যে ক্যান্সারের ওষুধ পাওয়া যাচ্ছে। 

এ যাবৎ যা উনি পাঠিয়েছেন, আমি চোখ বন্ধ করে, সেসব শেয়ার করেছি। কারণ, সেখানে ভাবনার কিছু ছিল না। কিন্তু এই প্রথম আমি দ্বিধাবোধ করলাম। খবরটি শেয়ার করার ক্ষেত্রে আমি সাবধানী হলাম। ক্যান্সারের ওষুধ আবিষ্কার নিয়ে এর আগেও অনেক খবর প্রকাশিত হয়েছে। তার মধ্যে গুজবের শতাংশই বেশি। এই খবরটি সত্যি না গুজব জানি না। সংশয় দূর করার জন্য নিজেকে যোগাযোগ করে জানকারি হাসিল করতে হবে, যেটা অবশ্যই সময়সাপেক্ষ। এই খবর শেয়ার করলে অনেক লোক উপকৃত হবে জানি। তা সত্বেও দায়িত্বজ্ঞানহীন হওয়া যাবে না কিছুতেই। প্রথমে সত্যতা যাচাই, তারপর বাকি কাজ।

দায়িত্ব। খুব বড় এক শব্দ। এই ক্যানসারের ওষুধ প্রাপ্তির খবরটিতে ঠিকানা ও ফোন নম্বর দেওয়া আছে। মানে লোকজন যোগাযোগ করবে। যদি তথ্য ঠিক না হয়, যদি কোনও জালিয়াতি চক্র হয়, কে তার দায় নেবে ? এই জায়গাটা নিয়ে সবাই ভেবে দেখুন দয়া করে। তথ্য শেয়ার করার আগে অবশ্যই যাচাই করুন তার সত্যতা। 

অজন্তা সিনহা

You can share this post!

Comments System WIDGET PACK

Download Our Android App from Play Store and Get Updated News Instantly.