news-details
Story

দুর্গাপুজোর 'স্লোগান'.. গল্পকথায়: ।।শান্তনু।।

শিলিগুড়ি, ২৩ অক্টোবর : আমি,শান্তনু..শিলিগুড়ি বার্তার সকল পাঠকবৃন্দকে জানাই শুভ বিজয়ার প্রীতি ও শুভেচ্ছা। আচ্ছা, এই প্রথম লাইনটা পড়ে আমাকে কেমন যেন রাজনৈতিক নেতা-নেতা মনে হচ্ছে না ? হবেই তো, এটাই তো 'স্লোগান'-এর এফেক্ট ! আসলে পুজোতে ঘুরতে বেরিয়ে..চারদিকে বিভিন্ন নেতা-নেত্রীদের ছবিসহ 'ব্যানার' দেখে..এটাই তো মনে আসা স্বাভাবিক। উৎসবের মরসুমে 'প্রীতি ও শুভেচ্ছা' জানানোর দ্বায়িত্বে এখন রাজনীতির সাথে যুক্ত ব্যক্তিরা। তাই আজকের গল্পকথায়..'স্লোগান' নিয়ে অন্যরকম কিছুকথা।
বাংলাতে আশ্বিন মাসের 'শারদোৎসব' এমন একটা উৎসব..যেখানে, রাজনৈতিক নেতা-নেত্রী থেকে শুরু করে..দেশী-বিদেশী বিভিন্ন কোম্পানি তাদের 'মার্কেটিং' করার সুযোগকে হাতছাড়া করতে চায় না। হাজার-হাজার মানুষের মাঝে দুর্গোৎসবের সময় মার্কেটিং করার সুযোগ আছে যেখানে, সেখানেই তো ওই 'স্লোগান'-এর গুরুত্ব আরও বেশি ! কর্পোরেট ভাষাতে সেই 'স্লোগান'-এর অপর নাম 'ট্যাগ লাইন'। স্লোগান হোক কিম্বা ট্যাগ লাইন..মার্কেটিং-এর ক্ষেত্রে, যে অর্থে ইংরেজির এই শব্দগুলো ব্যবহৃত হয়..তার উপযুক্ত বাংলা প্রতিশব্দ অনেক ভেবেও কিছুতেই মাথায় আনতে পারলাম না।
এবারে..এই 'ট্যাগ লাইন' মানেটা কি ? একটা উদাহরণ দেই। "সুরভিত এন্টিসেপটিক ক্রিম"..ক্রিমের নামটার আশা করছি আর বলার প্রয়োজন নেই..কারণ ক্রিমের নাম জানতে ওই 'ট্যাগ লাইন'-টাই যথেষ্ট ! অথবা.."পুজোয় চাই, নতুন জুতো"..এইটুকু বললেই নির্দিষ্ট জুতো কোম্পানির নামটা মনে পড়ে যায়। সেই ছোটোবেলা থেকে শোনা আর একটা সুরের ছন্দে গাঁথা 'ট্যাগ লাইন'..যেটা বাংলার প্রাণের উৎসব দুর্গাপুজোর সাথে ভীষণ ভাবে জড়িয়ে আছে.."এই প্রাণঢালা উৎসবে বারবার..আনন্দ উৎসবে, বাংলার ঘরে ঘরে"..শুধুমাত্র এইটুকু শুনলেই মনে পড়ে যায় সবুজ রঙের সেই নারকেল তেলের কৌটো-টার কথা। এইভাবেই কিছু 'স্লোগান' বা 'ট্যাগ লাইন' মনের মধ্যে গেঁথে যায়, হয়ে ওঠে কালজয়ী। তবে, এই বিভিন্ন কোম্পানির 'মার্কেটিং স্লোগান'-এর ক্ষেত্রে এগিয়ে আছে কিন্তু ড্রিঙ্কস কোম্পানিগুলো। আমি "Make It Large" কিম্বা "Khub Jamega Rang"-এর কথা বলছি না..বলছি 'সফ্ট ড্রিঙ্কস'-এর কথা। স্কুল-কলেজে পড়ার সময় "Happy Days Are Here Again" শুনলেই কেমন যেনো গলাটা শুকিয়ে উঠতো ! সেই ব্রান্ডেরই এবারের পুজোতে 'দাদা'-কে সঙ্গে নিয়ে নতুন স্লোগান.."পুজোয় ঘুরতে থাকো, থামস আপ হাতে রাখো"। পুজোর সময় সফ্ট ড্রিঙ্কস কোম্পানিগুলো থেকে আমরা আরো কিছু মনে রাখার মতো 'ট্যাগ লাইন' পেয়েছি, যেমন.."জোর কা ঝাটকা, ধীরেসে লাগে".."ঠান্ডা মানেই কোকাকোলা" অথবা "ঘুরবো ফিরবো পেপসি খাবো, ঠাকুর দেখে রাত কাটাবো" !
এবারে বাস্তব কথায় আসি। 'স্লোগান' বা 'ট্যাগ লাইন' মার্কেটিং-এর ক্ষেত্রে গ্রাহকদের আকর্ষিত করার জন্য একটা 'ক্যাচ লাইন' মাত্র। বিজ্ঞাপনের সব কথা সত্যি হলে কিছু 'ফেয়ারনেস ক্রিম' কোম্পানি আফ্রিকান দেশগুলোতেই ব্যাবসা করে খেতে পারতো ! তবে, কিছু স্লোগান কিন্তু কখনও হয়ে ওঠে আক্ষরিক অর্থেই বাস্তবিক। নীলকন্ঠ পাখি আগেই বার্তা পৌঁছে দিয়েছে..বিজয়া দশমীর পর দেবী দুর্গা কৈলাসে ফিরে গিয়েছেন। আমরা, হিন্দু বাঙালিরা বিসর্জনের দিন থেকেই আবার আগামী বছরের জন্য দিনগোনা শুরু করি শুধুমাত্র বহু পরিচিত দু'টো 'স্লোগান'-এর ওপরে ভরসা রেখে, সে দু'টো হলো.."আবার কবে..বছর পরে" এবং "আসছে বছর..আবার হবে" ! আর একটা উদাহরণ দেই..মাননীয়া মুখ্যমন্ত্রীর এবারের দুর্গাপুজোতে দেওয়া স্লোগান.."ধৰ্ম যার যার নিজের..উৎসব সবার"। এবারের দুর্গাপুজোর শেষ দু'দিন কলকাতার সংখ্যালঘু সম্প্রদায় অধ্যুষিত 'পার্ক সার্কাস' এলাকাতে কাটিয়ে এই কথাটার সারমর্ম সত্যিই উপলব্ধি করলাম। দেখলাম..ধর্মবর্ণ নির্বিশেষে সবাইকে উৎসবে মেতে আনন্দ করতে। 'নানা ভাষা, নানা মত, নানা পরিধান'-এর দেশ এই ভারতবর্ষ..সেখানে মিলনক্ষেত্র তো একমাত্র উৎসবই। তাই একশো শতাংশ বাস্তবিক কথা.."ধৰ্ম আমার..ধর্ম তোমার, উৎসব সবার"..!!

You can share this post!

Comments System WIDGET PACK