Top Stories
  1. তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আগাম অনুমতি ছাড়াই মালদা শহরে পদযাত্রা করতে দেওয়ার ফলেই   অর্ণব ঘোষেকে সরিয়ে দিল কমিশন 
  2. ধর্মনিরপেক্ষ ভারত গড়ার লক্ষ্যে ও তৃণমূল সুপ্রিমোর হাত শক্ত করতে অভিষেক ব্যানার্জির নির্বাচনী জনসভা নির্বাচনী জনসভা!
  3. 'বাবলুই সব থেকে বড় কয়লা মাফিয়া' বাবুল সুপ্রিয়কে তোপ দাগলেন তৃণমূল নেতা অরূপ বিশ্বাস!
  4. ভাটপাড়ার পর এবার হালিশহর পুরসভায় ফাটল ধরাল বিজেপি
  5. দামি বাইক যৌতুকে দেওয়ার কথা থাকলেও,সেই পনের দাবি মেটাতে না পারায় মেয়ের বাড়ির ওপর অত্যাচার!
  6. মেলাতে টয় ট্রেন ও নাগরদোলা ভেঙ্গে পড়ে গুরুতর আহত ১৪
  7. পিকনিকে এসে নদীর পারে সেলফি তুলতে গিয়ে নদীতে তলিয়ে গেল এক কিশোর। 
  8. বুথে বিরোধী এজেন্ট বসতে  দেওয়া হবে না?   প্রকাশ্যে সভায় নিদান দিলেন ভাঙ্গড়ের অনুব্রত  মুদ্দাসির
  9. বুনিয়াদপুরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নির্বাচনী জনসভা, জনসমুদ্রে পরিনত হলো মাঠ!
  10. দুই ভারতীয় নাগরিকের শিরশ্ছেদ করল সৌদি আরব 
news-details
State

কলকাতার নতুন পুলিশ কমিশনার অনুজ শর্মা 

 

 

নিউজ ডেস্ক,১৯ ফেব্রুয়ারি:কলকাতা নতুন পুলিশ কমিশনার হচ্ছেন অনুজ শর্মা। আজ মঙ্গলবার এই মর্মে নবান্ন থেকে নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে। ফলে আজই কার্যভার গ্রহণ করছেন তিনি। ১৯৯১ ব্যাচের আইপিএস অফিসার অনুজ। আগে এডিজি আইন শৃঙ্খলা পদে ছিলেন তিনি।  

নতুন নগরপাল অনুজ শর্মা এর আগে ডিসি ইএসডি, ডিসি সাউথ-সহ কলকাতা পুলিশের একাধিক গুরুত্বপূর্ণ পদে কাজ করেছেন। তাঁর জায়গায় নতুন এডিজি আইন শৃঙ্খলা হচ্ছেন ১৯৯২ ব্যাচের আইপিএস অফিসার সিদ্ধিনাথ গুপ্তা। তিনি এতদিন এডিজি (আইবি) পদে ছিলেন। 

একইসঙ্গে হাওড়ার পুলিশ কমিশনার হিসাবে দায়িত্ব নিচ্ছেন বিশাল গর্গ। এতদিন এই পদে ছিলেন তন্ময় রায়চৌধুরি। পাশাপাশি বারুইপুর পুলিস জেলার দায়িত্ব দেওয়া হল রশিদ মুনির খানকে। 

লক্ষৌ-এর লা মার্টিনিয়ার ফর বয়েজ থেকে দ্বাদশ শ্রেণির পাঠ শেষ করে ১৯৮৫ সালে লখনৌ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন অনুজ শর্মা। এই বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই ১৯৯০ সালে অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর পাশ করেন তিনি। এরপরই সিভিল সার্ভিস পরীক্ষায় অবতীর্ণ হওয়া এবং সাফল্য। অতীতে পশ্চিমবঙ্গের উপকূল নিরাপত্তার দায়িত্বও সামলেছেন এই আইপিএস অফিসার।  

সোমবার বিকেলে নবান্ন থেকে বেরিয়ে নিউটাউনে প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের নতুন ভবনের উদ্বোধনে গিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখান থেকে ফিরে যান নবান্নে। শীর্ষ আধিকারিকদের সঙ্গে রাত পৌনে নটা পর্যন্ত বৈঠক করেন মমতা। মনে করা হচ্ছে ওই বৈঠকেই পুলিশ প্রশাসনে রদবদলের বিষয়টি চূড়ান্ত করেন মুখ্যমন্ত্রী। 

প্রসঙ্গত,  গত ১৬ জানুয়ারি জাতীয় নির্বাচন কমিশন একটি নির্দেশিকা জারি করে। তাতে  বলা হয় নির্বাচনের কাজে যুক্ত কোনও অফিসার নিজের জেলায় কর্মরত থাকলে, তাঁদের বদলি করতে হবে । যদি একই জায়গায়  কোনও অফিসারের ৪ বছর কিংবা ৩১ মে ২০১৯-এর মধ্যে তিন বছর পূর্ণ হয়, তাঁদেরকেও বদলি করতে হবে ।  ৩১ মে ২০১৭ সালের মধ্যে যে সমস্ত নির্বাচন এবং উপ নির্বাচন হয়েছে, সেই নির্বাচনে যাঁরা ডেপুটি ইলেকশন অফিসার, রিটার্নিং অফিসার, অ্যাসিস্ট্যান্ট রিটার্নিং অফিসার হিসেবে নিযুক্ত ছিলেন তাঁদেরও করতে হবে বদলি । একই কাজ করতে হবে পুলিশ ইনস্পেক্টর ও সাব ইনস্পেক্টরদের ক্ষেত্রেও । নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে ওই নির্দেশিকা পৌঁছয় নবান্নতেও । তারপরেই এই সিদ্ধান্ত বলে জানা গেছে।

You can share this post!

Comments System WIDGET PACK

Download Our Android App from Play Store and Get Updated News Instantly.