Top Stories
  1. শর্ট শার্কিটের ফলে আগুন লাগলো একটি খড় বোঝাই লরিতে
  2. ব্রিগেডের সাফল্য কামনা করে রাহুলের শুভেচ্ছা মমতাকে
  3. শিলিগুড়িতে উদ্ধার বিপুল পরিমানের মদ
  4. ক্যানিং স্টেশন থেকে ধরা পড়লো ভুয়ো টিকিট কালেক্টর
  5. অস্ট্রেলিয়াকে ৭উইকেটে হারিয়ে সিরিজ জিতল ভারত
  6. সুন্দরবনে জলপথে অভিযান চালিয়ে আটক ২ টি বাংলাদেশের ট্রলার,উদ্ধার কয়েকশো কোটি টাকার পোশাক
  7. তৃনমূল আত্মবিশ্বাস হারিয়ে জনবিরোধী কাজ করছে, তৃনমূল গায়ের জোরে বাঁশ লাগিয়ে মানুষ কে বিগ্রেডে নিয়ে যেতে চাইছে, বিগ্রেডে কোন কাজের লোক আসছে না
  8. মাদক সহ আটক কুখ্যাত দুস্কৃতি
  9. বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাস এর অভিযোগ উঠল এক যুবকের বিরুদ্ধে
  10. রেললাইনের ধার থেকে উদ্ধার এক মৃত সদ‍্যজাত কন‍্যাসন্তান
news-details
State

ইতিহাস তৈরির দশ দিন পরেও ঘরে ফিরতে পারেনি বিন্দু এবং কনক দুর্গা

নিজস্ব সংবাদদাতা, ১১জানুয়ারি: ভগবান আয়াপ্পা দর্শনের চেয়েও যেন এখন কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে নিজের ঘরে ফেরা। ৪০ বছরের বিন্দু আম্মিনী আর ৩৯ বছর বয়সী কনক দুর্গা তাই বর্তমানে নিজেদের ঘর কোচি শহর থেকে অনতিদুরে এক অজ্ঞাত স্থানে অবস্থান করছেন। 

সংবাদসংস্থা রয়টারকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তাঁরা জানিয়েছেন, তাঁরা এবং তাঁদের পরিবার লাগাতার হুমকি পাচ্ছেন উগ্রহিন্দুবাদীদের কাছ থেকে তাই পুলিশ আপাতত তাঁদের অজ্ঞাত থাকার পরামর্শ দিয়েছেন। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে ঘরে ফেরার কথা ভাবা যাবে। বিন্দু, কুন্নুর বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের অধ্যাপক আর কনক দুর্গা সরকারি চাকরি করেন। সেপ্টেম্বর মাসেই সুপ্রিম কোর্ট রায় দিয়েছিল বয়সের দোহাই দিয়ে ঋতুসম্ভবাদের শবরীমালা মন্দিরে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেশের সংবিধান বিরোধী। এরপরই বহুমহিলা মন্দিরে প্রবেশ করতে যান। কিন্তু  কোর্ট হিন্দু ধর্মের কি বোঝে,  প্রশ্ন তুলে ওই মহিলাদের প্রবেশ আটকাতে মরিয়া হয় সংঘপরিবার , শবরীমালা কর্ম সমিতি এমনকি বিজেপিও। মন্দিরে প্রবেশ করতে গিয়ে লাঞ্ছিত হন মহিলারা এমনকি খবর সংগ্রহ করতে আক্রান্ত হন মহিলা সাংবাদিকরা।
    


ডিসেম্বরের ২৪ শবরীমালা মন্দিরে প্রবেশে ব্যর্থ হন বিন্দু ও কনক দুর্গা। তারপর আরও একবার। এরপরই পুলিশের দ্বারস্থ হন তাঁরা। ২রা জানুয়ারি পুলিশের সহায়তায় মন্দিরে প্রবেশ করেন তাঁরা এবং ভগবান আয়াপ্পা দর্শন করেন তাঁরা। খবর ছড়ানো মাত্র উত্তাল হয়ে ওঠে কেরল। হরতাল, হিংসা, অগ্নিসংযোগ এমনকি খুনের ঘটনাও ঘটে। সেপ্টেম্বর শীর্ষ আদালতের রায়ের পর জানুয়ারির ৩, উগ্রহিন্দুবাদী ও সংঘপরিবারের ডাকা এবং বিজেপির সমর্থন করা ১৫টি হরতাল দেখে কেরল। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী বিজয়ন জানিয়ে দেন , হয় সুপ্রিম কোর্টের রায় বলবৎ করব অথবা পদত্যাগ করব। 
  

বিন্দু জানিয়েছেন, ' ব্যক্তিগত ভাবে আমরা ভীত নই কারন আমরা জানি আমাদের কি হতে পারে! সেটা জেনেই আমরা মন্দিরে প্রবেশ করেছিলাম। কিন্তু পুলিশ বলছে আমরা বাড়ি ফিরলে গোটা এলাকাটাই আবার উত্তপ্ত হয়ে উঠবে। তাই কিছুদিন অপেক্ষা করতে। আমরা পুলিশের ওপর আস্থা রাখছি।' কনক দুর্গা জানিয়েছেন, ' দেশের একটি স্বীকৃত রাজনৈতিক দল বিজেপি। সংবিধান মানে বলেই না তারা স্বীকৃতি পেয়েছে! তাদেরই দলের সদস্যরা এসব করছে কি করে? বিজেপি নেতৃত্ব তাদের কর্মীদের সংযত করতে পারছেনা! '

You can share this post!

Comments System WIDGET PACK

Download Our Android App from Play Store and Get Updated News Instantly.